বর্তমান প্রতিযোগিতা মূলক মার্কেটে নতুনদের করনীয় !

প্রথাগত পেশা সমূহ থেকে ফ্রিল্যান্সিং তুলনামূলকভাবে একটু ভিন্ন। এই পেশাই খুব বেশি বাধ্যবাধকতা না থাকায়, দিন দিন এই পেশাতে প্রতিযোগিতা হার বেড়েই চলছে। এত সকল প্রতিযোগিতার মধ্যে নতুনদের টিকে থাকতে তাকে অনন্য পরিসরে ক্লায়েন্টদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে হয়।

তাই নতুন ফ্রিল্যান্সারদের জন্য রইল ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ক কিছু গুরুত্বপূর্ণ ধারনা :

উক্ত কাজে যথেষ্ট দক্ষতা সম্পন্ন – বেশিরভাগ লোকেরা তাদের “কী” ভালো করতে হবে তা নিয়ে চিন্তা করে তাদের সময় নষ্ট করে যখন আসলে আপনার যাতে ফোকাস করা উচিত তা মূলত আপনি যা করতে চান তা। যাই হোক না কেন, আপনি কোন প্রকল্প গ্রহণ করতে পারলে উৎসাহিত হন তাই আসল। মনে রাখবেন আপনার যে কাজে আগ্রহ বেশি থাকবে, আপনি সেটা শিখতে এবং করতে বেশি সাচ্ছন্দ বোধ করবেন এবং সফলতা অ পাবেন। তবে শুরুতে, আমরা আমাদের পোর্টফোলিও তৈরি করতে সহায়তা করার জন্য সেখানে যে কোন অফার গ্রহণ করার ঝোঁক করি। তবে আপনি যখন ফ্রিল্যান্সিংয়ের গভীরে যাবেন তখন আপনার যে চাকরি এবং ক্লায়েন্টরা আপনি গ্রহণ করবেন তাদের সাথে আপনারও কৌশলগত মিল থাকা দরকার। আপনার মার্কেট নির্বাচন করা এবং সেগমেন্ট করা গুরুত্বপূর্ণ কারণ আপনি নিজের দক্ষতার ক্ষেত্রটি বিকাশ করার পরে আপনি অন্যের কাছে একটি রেফারেন্স হয়ে উঠতে পারবেন ।

কোয়ালিটি সম্পন্ন কাজে আগ্রতা প্রদান – আপনি যদি কেবল ফ্রিল্যান্সার হিসাবে শুরু করে থাকেন তবে সম্ভবত ফ্রিল্যান্সার এবং ফাইবারের মতো অনলাইন মার্কেটপ্লেস থেকে আপনি প্রজেক্ট সুযোগ চাবেন, এমনটি সম্ভব। আপনার পক্ষে যথাসম্ভব বেশি প্রকল্পে বিড করা খুব স্বাভাবিক। তবে, এখানে শিখার জন্য একটি মূল বিষয় হল বিডের বিষয়গুলির গুণগত মান। কোনো ক্লায়েন্টের ব্যবসায় তারা কী করে, কীভাবে এটি করে এবং আপনার কাছে কী জিজ্ঞাসা করা হচ্ছে সে সম্পর্কে যথাসম্ভব শেখার চেষ্টা করুন। একবার আপনি প্রয়োজনীয়তার গভীরতা অধ্যয়ন করার পরে, একটি শর্ট ডকুমেন্ট প্রস্তুত করুন যেখানে আপনি কতটুকু পারবেন,সমস্ত জিনিসকে বিশদভাবে লিখে রাখতে পারেন। একটি উচ্চ মানের বিডে আপনার কয়েক হাজার নিম্ন মানের বিডের তুলনায় প্রজেক্ট পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি যেখানে আপনি ক্লায়েন্টের প্রয়োজনীয়তা বিশ্লেষণ করতে বা আপনার দক্ষতাগুলো কী তা বুঝতে তাদের সহায়তা করেন না।

স্ব-শৃঙ্খলা অর্জন করা – আত্ম-শৃঙ্খলা সফল ফ্রিল্যান্সারদের একটি অসামান্য গুণ। কিছু লোকের পক্ষে শেষ না হওয়া পর্যন্ত একটি কাজের উপর মনোনিবেশ করার ক্ষমতা অন্যের চেয়ে সহজ, তবে এটি এমন একটি বৈশিষ্ট্যও যা সময়ের সাথে গড়ে তুলা যায়। আপনার নিজের সহায়তা করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন, কীভাবে বিক্ষিপ্ততা হ্রাস করতে পারয়েন, কাজগুলির একটি তালিকা তৈরি করুন, যা আপনার মনে রাখতে সহায়ক হয়।

একটি উন্নত পোর্টফোলিও গঠন – আপনার প্রোফাইলটি সম্পূর্ণ করার সময় তাড়াহুড়ো করবেন না। এটি যতটা সম্ভব সময় নিয়ে ডিটেলসে তৈরি করুন এবং এটি ক্লায়েন্টের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখার চেষ্টা করুন। যতটা সম্ভব তথ্য যুক্ত করুন। অবশ্যই পেশাদারিত্ব বজায় রাখুন। আপনার জানা নেই এমন কোনও দক্ষতা যুক্ত করবেন না, কারণ মিথ্যাটি দীর্ঘকাল ধরে রাখা রাখতে পারবেন না এবং ক্লায়েন্টের জন্য এটির মতো নেতিবাচক অভিজ্ঞতাও শেষ হতে পারে আপনার জন্য খারাপ রেটিং-এর মাধ্যমে।

সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে সক্রিয় থাকা এবং দক্ষতার প্রচার – সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে কিছু নেটওয়ার্কিং করা এবং ফ্রিল্যান্সার হিসাবে আপনার কাজের প্রচার করা সম্ভব। ইনস্টাগ্রাম এবং লিংকডইন-এর মতো সামাজিক মিডিয়া ব্যবহার করা আপনার কাজ ও এর বিষয়বস্তু প্রচারের দুর্দান্ত উপায়। বিভিন্ন ফোরামে আলোচনা এবং তথ্য বিনিময় গ্রুপগুলিতে অংশগ্রহণ করা ।আপনার পরিচিতজনদের মধ্যেও কেউ একদিন আপনার ক্লায়েন্ট হয়ে যেতে পারে। এসবের বিভিন্ন সমিতি, সম্মেলন, মেলা এবং ইভেন্টগুলিতে অংশ নিন। এগুলি সর্বদা নতুন সম্ভাব্য ক্লায়েন্টদের দুর্দান্ত উৎস, আপনার কাজের একটি প্রদর্শনী বা এমন লোকদের সন্ধানের উপায় যাঁর পরিষেবাগুলি আপনার পরিপূরক হতে পারে। এছাড়াও, এই জায়গাগুলিতে আপনার কাছে সর্বদা আপনার কাজের বিভিন্ন ট্রেন্ড ও পরিবর্তন সম্পর্কে আরও জানার এবং অনুসরণ করার বিশাল সুযোগ রয়েছে, সেইসাথে রয়েছে এমন নতুন টুলস যা আপনার ক্ষমতা এবং আপনার ব্যবসাকে বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে।

এটা গেল ফ্রিল্যান্সিং হিসেবে নিজেকে তৈরি করার বৈশিষ্ট্য। কিন্তু আপনি যদি নতুন ব্যবসা পরিচালনার কথা ভেবে থাকেন সেখানেও কিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে যেগুলো আপনাকে অবশ্যই মেনে চলতে হবে। মোট কথা একজন উদ্যোক্তা হওয়ার ক্ষেত্রে আপনাকে অভিনব কায়দা এবং ইউনিক আইডিয়া সম্পন্ন কাজ করতে হবে। ব্যবসা এক মাস বা এক বছরের জন্য নয়। আপনাকে আগামী কয়েক বছরের চিন্তা এবং প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার জন্য যা যা করা দরকার সেগুল করতে হবে। এবং এই কাজ গুলো একদিনে সম্ভব নয় কিংবা একদিনে চিন্তা করে বের করতে পারবেন না। এজন্য চাই সঠিক প্ল্যান। আপনি আগে প্ল্যান সাজাবেন এবং সেই অনুযায়ী কাজ কুরবেন। আপনাকে এটাও মাথায় রাখতে হবে আপনি মার্কেটে নতুন যেই পণ্য বা সার্ভিস টি নিয়ে নামছেন তা আগে কেউ করেছে কি না বা এটির মার্কেটে চাহিদা কতোটুক। 

কোন কিছু শুরু করার অবশ্যই যেই বিষয়বস্তু নিয়ে কাজ করবেন তা নিয়ে পরিপূর্ণ ধারণা রাখতে হবে। আরও ভালো হবে যদি আপনি কোন রিসার্চ ওয়ার্ক করে নেন। এতে করে আপনার কাজের ক্ষেত্রে সুযোগ সুবিধাগুলো বুঝতে পারবেন এবং পরবর্তীতে তা কাজে লাগাতে পারবেন। মনে রাখবেন প্রাথমিক পর্যায়ে অনেক বাধা বিপত্তি আসবে, সেগুল অতিক্রম করে এগিয়ে যেতে পারলেই সাফল্য আপনাকে ধরা দিবে।

 

June 3, 2021